টুইটার মার্কেটিং – পার্ট ১

  • Abdullah Nahian
  • September 3, 2019
  • 0 Comments

 

বর্তমান সময়ে সাফল্য পাওয়ার জন্য মার্কেটিং এর বিকল্প নেই। আপনি যেই প্রফেশনে কাজ করেন না কেনও মার্কেটিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে অনালাইন মার্কেটিং। আর এই জন্য টুইটার হতে পারে অনলাইন মার্কেটিং এর বেশ ভালো একটা প্লাটফর্ম। টুইটার এর সবচেয়ে বড় সুবিদা হচ্ছে এখানে ফেক অ্যাকাউন্ট থাকে না। ট্রাম্প, বারাক ওবামা, লিওনেল মেসি, রোনালদো সহ বিশ্ব বিখ্যাত তারকরা নিজের অ্যাকাউন্ট নিজেই পরিচালনা করেন। ফেসবুক এর মতো একি নামে শত শত অ্যাকাউন্ট খুলা সম্ভব না। এই ফিচারটা আমার সবচেয়ে ভালো লাগে।

টুইটার কি?
===

টুইটার একটি মাইক্রো ব্লগিং ওয়েবসাইট। অনেকটা ফেসবুক এর মতো। আপনি ১৪০ অক্ষরের মধ্যে আপনার মনের কথা প্রকাশ করতে পারেন। ছবি, ভিডিও শেয়ার করতে পারেন। অন্যকে ফলো করতে পারেন। এর কিছু সুবিদা আছে।

কিভাবে অ্যাকাউন্ট খুলবো?
===

আপনার ফোন নাম্বার বা ইমেইল দিয়ে খুলতে পারেন। তবে ভালো হয় ইমেইল দিয়ে খুললে। আর খেয়াল রাখবেন একটা কমন ইউজার নেম এবং প্রোফাইল পিকচার ব্যাবহার করার জন্য। এই ইউজার নেম আর প্রোফাইল পিকচার আপনার অন্যান্য সামাজিক অ্যাকাউন্ট এ রাখার চেষ্টা করবেন।

কিভাবে প্রোফাইল সাজাবো?
===

প্রোফাইল পিকচারের পাশাপাশি একটি সুন্দর কভার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কভার ফটোতে আপনার স্কিল লিস্ট, ফোন, ইমেইল ইত্যাদি দিতে পারেন।
সুন্দর একটা বর্ণনা দিবেন যাতে আপনার সম্পর্কে যে কেউ একটা ধারণা পায়।

কাদের ফলো করবো?
===

এখানে ফেসবুক এর মতো ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠানো যায় না। আপনি ফলো করতে পারেন। আরেকটা মজার ফিচার হল যারা ভ্যালিড ইউজার তাদের নামের পাশে নীল রঙের ঠিক চিহ্ন দেওয়া থাকে। কাউকে ফলো করার আগে এটি দেখে নিবেন। যেহেতু আপনার উদ্দেশ্য মার্কেটিং করা, তাই তাদের ফলো করুন যাদের প্রচুর জনপ্রিয়তা ও বিশ্বজুরে প্রচুর ফলোআর আছে। যেমনঃ রাজনৈতিক, খেলোয়াড়, মুভি তারকা, পত্রিকা, বিভিন্নও ব্র্যান্ড যেমন অ্যাপেল, স্যামসাঙ, মাইক্রোসফট ইত্যাদি।
সতর্কটাঃ একি দিনে খুব বেশী ফলো করবেন না। নাহলে স্পাম হিসেবে টুইটার আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যান করে দিতে পারে।

টুইটার মেনুঃ
===

হোমঃ এইটা ফেসবুক এর নিউজ ফিডস এর মতো আপনি যাদের ফলো করবেন তাদের টুইট গুলা এখানে দেখা যায়। ফেসবুক এ যাকে স্ট্যাটাস বলে, টুইটার এ টুইট বলা হয়।

এক্সপ্লোরঃ ট্রেন্ডীং বা জনপ্রিয় টুইট এখানে দেখা যায়।

নোটিফিকেশানসঃ এখানে কেও আপনাকে ফলো করলে, বা টুইট লাইক বা রি-টুইট (ফেসবুক এর কমেন্ট এর মতো) করলে ইত্যাদি এখানে দেখাবে।

ম্যাসেজঃ ফেসবুক ম্যাসেজ অপশন এর মতো।

বুকমার্কঃ প্রতিনিয়ত অনেক টুইট হয়। আপনি ইচ্ছা করলে আপনার পছন্দের টুইটগুলা বুকমার্ক করে রাখতে পারেন পরে পড়ার জন্য।

প্রোফাইলঃ অনেক্তা ফেসবুক প্রোফাইলের মতো আপনার সকল টুইট এখানে এসে জমা হয় আর কোথায় রিটুইট করলে বা লাইক দিলে ইত্যাদি এখানে দেখায়।

মোটামুটি এইগুলা জানলে আপনি সহজে টুইটার ব্যাবহার করতে পারেন।

*** আগামী পর্বে মূল মার্কেটিং নিয়ে আলোচনা করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *